Writing

হেদায়াত

আমি একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে জব করি। প্রতিদিনের মত আজও অফিস থেকে এসে রুমে ল্যাপটপ নিয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশন একটি প্রোগ্রাম দেখতে ছিলাম। হঠাৎ আম্মু আসে এসে বললেন বিয়ে করতে হবে। উনারা আর কতদিন বাচঁবেন তার নিশ্চয়তা নেই।
নাতি-নাতিন মুখ দেখে মরলেও নাকি শান্তি। বললাম আম্মু এখন না আরো পরে তোমরা আগে হাজ্জ করে নেয় তারপর। আম্মু বললেন হাজ্জে এই বছরে যাবে তার আগে তর বিয়ে। আমার আর কোনো কথা শুনলেন না।
আজ মেয়ে দেখতে যাবো। মাশা-আল্লাহ্ অনেক মায়াবী চেহারা আমার খুব পছন্দ হল আর মেয়েটিরও আমাকে পছন্দ হল। ওহহ আমার নামতো বলা হলো না। আমার নাম আবির আর মেয়েটির নাম সিনথিহা। কয়েকদিন এর মধ্য বিয়েটা হয়ে গেলো।

বিয়ের পর জানতো পারলাম মেয়েটি অনেক আধুনিক। তার সামাজিক মাধ্যমের সবটিতে একটিভ থাকে। বন্ধুদের আড্ডা দেওয়া, পার্টি করা, ঘুরা-ঘুরি করা, বের্পদায় চলা-ফেরা করা, ছবি আপলোড দেওয়া, নন-মাহরামের সাথে কথা-বার্তা বলা, চলা-ফেরা করা। নামাজ পড়তো না ও কোরআন তেলাওয়াত করতো না। এইগুলো দেখে আমার ভালো লাগতো না। আমি অনেক বুঝালাম তারপরও আমার কোনো কথা শুনলো না। আমি অনেক কোরআনের আয়াত

وَقُل لِّلْمُؤْمِنَاتِ يَغْضُضْنَ مِنْ أَبْصَارِهِنَّ وَيَحْفَظْنَ فُرُوجَهُنَّ وَلَا يُبْدِينَ زِينَتَهُنَّ إِلَّا مَا ظَهَرَ مِنْهَا وَلْيَضْرِبْنَ بِخُمُرِهِنَّ عَلَى جُيُوبِهِنَّ وَلَا يُبْدِينَ زِينَتَهُنَّ إِلَّا لِبُعُولَتِهِنَّ أَوْ آبَائِهِنَّ أَوْ آبَاء بُعُولَتِهِنَّ أَوْ أَبْنَائِهِنَّ أَوْ أَبْنَاء بُعُولَتِهِنَّ أَوْ إِخْوَانِهِنَّ أَوْ بَنِي إِخْوَانِهِنَّ أَوْ بَنِي أَخَوَاتِهِنَّ أَوْ نِسَائِهِنَّ أَوْ مَا مَلَكَتْ أَيْمَانُهُنَّ أَوِ التَّابِعِينَ غَيْرِ أُوْلِي الْإِرْبَةِ مِنَ الرِّجَالِ أَوِ الطِّفْلِ الَّذِينَ لَمْ يَظْهَرُوا عَلَى عَوْرَاتِ النِّسَاء وَلَا يَضْرِبْنَ بِأَرْجُلِهِنَّ لِيُعْلَمَ مَا يُخْفِينَ مِن زِينَتِهِنَّ وَتُوبُوا إِلَى اللَّهِ جَمِيعًا أَيُّهَا الْمُؤْمِنُونَ لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُون

আর মুমিন মহিলাদের বলে দিন, তারা যেন তাদের দৃষ্টি সংযত করে রাখে এবং নিজেদের লজ্জাস্থানের হিফাজত করে। আর তারা যেন স্বীয় সাজসৌন্দর্য না দেখায়, তবে যা নিজে নিজে প্রকাশ হয়ে যায় । তা ছাড়া তারা যেন তাদের মাথার ওড়না বক্ষদেশে ফেলে রাখে। এবং তারা কারো সামনে তাদের সাজসৌন্দর্য প্রকাশ করবে না এই মাহরাম আত্মীয়গণ ব্যতীত যথা স্বামী, পিতা, শ্বশুর, পুত্র, ভ্রাতা ভ্রাতুষ্পুত্র, ভগ্নিপুত্র, স্ত্রীলোক, অধিকারভুক্ত, বাঁদী, নারীর প্রতি স্পৃহাহীন সেবক, ওই সব বালক যারা নারীর গোপনীয় বিষয় সম্পর্কে অবহিত হয়নি। তারা যেন পথচলার সময় এমন পদধ্বনি না করে যাতে তাদের অপ্রকাশিত সৌন্দর্য পদধ্বনিতে প্রকাশিত হয়ে পড়ে। ‘হে মুমিনগণ! তোমরা সবাই আল্লাহর কাছে তওবা কর যাতে তোমরা সফলকাম হও।’ (সুরাঃ নূর, আয়াত-৩১)।

وَقَرْنَ فِي بُيُوتِكُنَّ وَلَا تَبَرَّجْنَ تَبَرُّجَ الْجَاهِلِيَّةِ الْأُولَى
মহান আল্লাহপাক এরশাদ করেন, ‘(হে নারীগণ!) তোমরা আপন গৃহে অবস্থান করো এবং জাহেলিয়াতের যুগের মতো সাজসজ্জা সহকারে অবাধে চলাফেরা করো না।’ (সূরা আহজাবঃ আয়াত-৩৩)

وَإِذَا سَأَلْتُمُوهُنَّ مَتَاعًا فَاسْأَلُوهُنَّ مِن وَرَاء حِجَابٍ ذَلِكُمْ أَطْهَرُ لِقُلُوبِكُمْ وَقُلُوبِهِنَّ
মহান আল্লাহতায়ালা এরশাদ করেন, ‘আর যখন তাদের কাছে তোমরা কিছু চাইবে, তখন (তারা) তোমাদের দৃষ্টির অন্তরালে হিজাব বা পর্দার ভেতরে অবস্থান করবে, আর তোমরা তাদের কাছে পর্দার বাইরে থেকে চাইবে। তোমাদের এ কাজ তোমাদের অন্তর ও তাদের অন্তরকে কুচিন্তার আবরণ থেকে উত্তমভাবে পাক-পবিত্র রাখার উপায় হবে।’ (সূরা আহজাবঃ আয়াত-৫৩)।

ও হাদিস
উম্মুল মু’মিনীন হযরত আয়েশা সিদ্দিকা আলাইহাসসালাম বলেন,
كان الركبان يمرون بنا و نحن محرمات مع الرسول فإذا حاذونا سدلت إحدانا جلبابها على وجهها من رأسها فإذا جاوزنا كشفناه.
আমরা রাসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে এহরাম অবস্থায় ছিলাম, উষ্ট্রারোহী পুরুষরা আমাদের পার্শ্বদিয়ে অতিক্রম কালে আমাদের মুখামুখি হলে আমরা মাথার উপর থেকে চাদর টেনে চেহারার উপর ঝুলিয়ে দিতাম। তারা আমাদেরকে অতিক্রম করে চলে গেলে আমরা মুখমন্ডল খুলে দিতাম। (আহমাদ শরীফ, আবু দাউদ শরীফ, ইবনে মাজাহ শরীফ)

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,
“দু’ শ্রেণীর মানুষ জাহান্নামী হবেঃ-
যারা গরুর লেজ সদৃশ বেত দ্বারা মানুষকে প্রহার করে এবং যে সব নারী এত পাতলা পোশাক পরিধান করে যে তার ভেতর দিয়ে শরীরের অংশ দেখা যায় এবং উটের কুঁজের মতন কেশ বিন্যাস করবে।
এ নারী জান্নাতের সুঘ্রাণও পাবে না, যা বহুদূর থেকে পাওয়া যায়।”
[সহীহ মুসলিম হাদিস ২১২৭, মুসনাদে আহমাদ, হাদীস ৮৬৬৫]

প্রত্যেক চোখ যিনা করে।
আর কোন নারী যদি সুগন্ধি ব্যবহার করে কোন মজলিশের পাশ দিয়ে যায় তাহলে সেও নযরের যিনা বা সরাসরি যিনার প্রতি প্রলব্ধুকারী হিসেবে গণ্য হবে।”
(জামে তিরমিযী, হাদীস ২৭৮৬)

রাসুল (সঃ) ইরশাদ করেন,
“খবরদার তোমার বেগানা স্ত্রীলোকের ঘরে প্রবেশ করো না।
জনৈক সাহাবী জিজ্ঞাসা করেন ইয়া রাসুলুল্লাহ (সঃ) স্বামীর ভাইদের (ভাসুর, দেবর, বেয়াই ইত্যাদি) সম্পর্কে কি নির্দেশ?
রাসুল (সঃ) ইরশাদ করেন তারা তো স্ত্রীর জন্য মৃত্যুতুল্য।
অর্থাৎ মহাবিপদতুল্য।”
(তিরমিজিঃ ১/২২০)

রাসুলুল্লাহ (সাঃ) বলেছেন, “নারীরা হচ্ছে চাদর এবং যদি সে গৃহের বাইরে যায় তবে শয়তান খুশি হয় (তাকে বিভ্রান্ত করতে পারবে বলে)।
সে (নারী) আল্লাহর নৈকট্য লাভ করতে পারে না যতটা সে গৃহে থেকে করতে পারতো।”
[ইবনে হিব্বান ও ইবনে আবী খুযাইমাহ, আলবানী এটিকে সহীহ বলেছেন, সিলসিলা আস সহীহাহ ২৬৮৮]

আবু হুরায়ররা (রাদিআল্লাহু আনহু) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বলেছেন, “মহান আল্লাহ ও শেষ দিবসের প্রতি যে নারী ঈমান রাখে, তার মাহরামের সঙ্গ ছাড়া একাকিনী এক দিন এক রাতের দূরত্ব সফর করা বৈধ নয়।’’

[সহীহ বুখারীঃ হাদীস ১০৮৮, সহীহ মুসলিমঃ ১৩৩৯, জামে তিরমিযীঃ হাদীস ১০৭০, সুনানে আবু দাউদঃ হাদীস ১৭২৩, ইবনে মাজাহঃ হাদীস ২৮৯৯, মুসনাদে আহমদঃ হাদীস ৭১৮১, ৭৩৬৬, ৮২৮৪, ৮৩৫৯, ৯১৮৫, ৯৩৭৪, ৯৮৪৮, ১০০২৯, ১০১৯৭, মুওয়াত্তা মালিকঃ হাদীস ১৮৩৩]

শুনালাম জাহান্নামের শাস্তির কথা বললাম কোনো লাভ হল না। এই কথাগুলো বললে ঝগড়া করে আর আম্মু আব্বুর সাথে খারাপ ব্যবহার করে তাদের কষ্ট দেয়। এভাবে দিন চলতে থাকে আমি প্রতিদিন বুঝানোর চেষ্টা করি কোনো লাভ হল না।
১ বছর ৪ মাস হল আমাদের বিয়ে হয়েছে।
প্রতিদিনের মত আজও তাহাজ্জুতের নামাজ পরে। দোয়া শুরু করলাম – হে আল্লাহ্ আমার মা-বাবা কে ক্ষমা করে দিন, তাদের জিবনের সব গুনাহ ক্ষমা করে দিন, তাদের নেক হায়াত ও আপনার গোলামি করার বেশি বেশি তৌফিক দিন। দুনিয়াতে দেখেছি এক ভিক্ষুক এক দরজায় ভিক্ষা না পেলে অন্য দরজায় ভিক্ষা পায়, কিন্তু আমি এমন এক ভিক্ষুক আপনার দরবার ছাড়া যাওয়ার জায়গা নাই।

হে আর-রাহমান আমি ছাড়াতো আপনার আরো বান্দা আছে কিন্তু আপনি ছাড়াতো ইবাদাত করার যোগ্য আর নেই আপনি আমায় ফিরিয়ে দিবেন না।

আপনি আমার স্ত্রী কে হেদায়াত দান করুন। সে অবুঝ তার বুঝ দান করুন। আপনার কাছে তো দ্বীনদার, সম্পদশালী, বংশমর্যাদা, রুপবতী মেয়ে স্ত্রী হিসাবে চেয়েছিলাম। তিনটি ঠিক ছিল কিন্তু সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ সেটাতো নেই আমার মালিক দ্বীনদার। আপনি হয়তো এটার মাঝে আমার কল্যাণকর দিয়েছেন বলে ফুপিয়ে ফুপিয়ে কাঁদতেছি। মুনাজাত শেষ করে কোরআন তেলাওয়াত করলাম পরে তাসবীহ পড়তেছি আর ফযরের আজানের জন্য অপেক্ষা করতে লাগলাম। ৩৫ মিনিট পর আযান হল। আমি তাকে নামায পড়ার জন্য ডাকলাম। কিন্তু আজও ওঠলোনা। আমি নামাযে চলে গেলাম। নামায শেষ করে হাটতেছি তখন মৃদু বাতাস এসে লাগলো গায়ে।

মনটা পুরো শান্ত হয়ে গেলো। তাই বাসায় না গিয়ে হাটতে লাগলাম। হঠাৎ ফোনে রিং বাজলো তাকিয়ে দেখি সিনথিহার কল। দেখে অবাক হলাম আর ভাবলাম যে মেয়েটা দুপুর ১২ টার আগে ঘুম ওঠে না সেই মেয়েটা এই সময় কল!!!
তাকিয়ে দেখি কল কেটে যায়।আবার কল দিলো ধরলাম ও পাশ থেকে বাক্য আসলো আপনি কোথায়?

বললাম হাটতেছি। ও থেকে বললো বাসায় আসেন দরকার আছে বললাম আসতেছি। বাসায় গিয়ে দেখি চোখ ফুলা ভাবলাম এতো সকাল ঘুম থেকে ওঠে হয়তো চোখ ফুলে গেছে। তারপর যেটা হল সেটার জন্য প্রস্তুত ছিলাম না। আমার পায়ে ধরে কাঁদতে লাগলো। আমি তাকে তুললাম। বললাম কি হয়েছে এই যে কান্না করছে আর থামতে চায় না।

মেয়েরা কান্না শুরু করলে আর থামতে চায় না তার প্রমাণ আজ পেলাম। আবার বললাম কি হয়েছে ও বলে ক্ষমা করে দিতে। আর এই রকম করবে না কথা মত চলবে পর্দা করবে , ঠিক মত নামায পড়বে, কোরআন তেলাওয়াত করবে আমার কথামত চলবে। মনে মনে বললাম এটাতো চেয়েছিলাম এতো দিন ধরে আর আল্লাহ্ শুকরিয়া আদায় করলাম। তারপর বলে নামাজে কিছু ভুল আছে বললাম ঠিক হয়ে যাবে আবার বলে কোরআনে উচ্চারণ কিছু ভুল আছে বললাম ঠিক হয়ে যাবে।

তারপর থেকে নামাজ পড়ে কোরআন তেলাওয়াত করে পর্দা করে চলে। আর সামাজিক মাধ্যম থেকে সব ছবি ডিলেট করে দেয়।তারপর থেকে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়া, পার্টি করা, ঘুরা-ঘুরি করা, বেপর্দায় চলা-ফেরা করা, ছবি আপলোড দেওয়া, নন-মাহরাম সাথে কথা বলা সব বাদ দিয়ে দেয়। একদিন অফিস থেকে ফিরে রুমে আসলাম এসে দেখি হালকা কাজল আর ঠোটে লিপস্টিক দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

দেখে অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছি এতো মায়াবী লাগছিলো মাশা-আল্লাহ্। তার কথায় বাস্তাবে ফিরে আসলাম বলে কি দেখো এমন করে বললাম আল্লাহ্ আমার সামনে কি কোন পরী এনে দিয়েছে। কাছে গিয়ে তার গাড়ে আদর দিলাম ও চোখ বন্ধ করে নিলো। তারপর কানের কাছে যেটা বলল সেটা শুনে অবাক হলাম। আমি নাকি বাবা হতে চলেছি বলে লজ্জায় আমার বুকে মুখ লুকালো। আমি কি বলব কিছু বুঝতেছি না। শুধু বললাম আমার ছোট্ট পরী চাই এই পরীটার মত।

আজ ডেলিভারির দিন যাওয়ার সময় আমার হাতটা শক্ত করে ধরে বলে তাকে ক্ষমা করে দিতে আর যদি দেখা না হয়। বললাম আল্লাহ আছেন সব ঠিক হয়ে যাবে। চোখের সামনে শুধু পরীর মায়াবী মুখ টা দেখতে ছিলাম তারপর দরজাটা বন্ধ হয়ে যায়। অনেক চিন্তায় ছিলাম কি হবে। হঠাৎ নার্স এসে আমার হাতে ছোট্ট একটা পরী দিলো। ঠিক আমার পরীটার মত দেখতে। নার্স কে জিজ্ঞাসা করলাম আমার পরীটা কেমন আছে বললো নিজে গিয়ে দেখেন। ছোট্ট পরীটা আম্মুর হাতে দিয়ে ভিতরে গেলাম। দেখি পরীটার মুখ সাদা কাপড় দিয়ে ডাকা। কাপড় তুলে জড়িয়ে ধরলাম কিছু বলার শক্তি পাচ্ছি না শুধু চোখ বেয়ে পানি পড়ছে।

কিছুক্ষণ পর কানে ব্যাথা অনুভব করলাম পরীটা কামড় দিয়ে বলে। এখন থেকে আমার দল ভারী মা-মেয়ে মিলে আমায় কড়া শাসন করবে। মুচকি হেসে কপালে চুমো দিলাম। চোখের পানি তার গাল বেয়ে পড়তে থাকে।

আপনার সমস্যা কখনওই আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালার সাহায্য চাইতে বড় নয়, আপনার প্রতি মানুষের ঘৃণা কখনওই আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালার ভালোবাসা থেকে বেশি নয়।আপনার পাপের চাইতে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালার দয়া ও ক্ষমা সুবিশাল। পাপ করে ক্ষমা চেয়ে নিবেন তওবা করবেন। আর ওয়াদা করবেন এই পাপ আর হবে না।

তাহলে বুঝতে পারবেন আপনার অজানা প্রশান্তির ছায়া ঘিরে রেখেছে। যে আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালাকে পায়, পাওয়ার আর মতো তার আর বাকি থাকে কি?

পরিশেষে, আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালা বলেন – “নিশ্চয় দুঃখের পর আছে সুখ, নিশ্চয় কষ্টের পর আছে স্বস্তি”।
সূরা: ইনশিরাহ (৫-৬)।

এই প্রথম কোন গল্প লিখলাম ভুল হলে ক্ষমা দৃষ্টিতে দেখবেন।আল্লাহ তা’য়ালা সব মুসলিম ভাই ও বোনকে হেদায়াত ও নেক হায়াত দান করুন। আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তা’য়ালার বেশি বেশি ইবাদাত করার তাওফীক দিন,
ওমা তাওফীকি ইল্লা বিল্লাহ,
আল্লাহুম্মা আমিন।

গল্প – হেদায়াত
লেখক-
Jubayer Ahmed (কালো হিমু)

লিখেছেন

Show More

Related Articles

Leave a Reply, if you have comments about this post.

Back to top button