Quotes

বডিস্প্রে ব্যবহারে করে কী সালাত আদায় করলে তা কবুল হয়?

বডিস্প্রে ব্যবহারে করে কী সালাত আদায় করলে তা কবুল হয়?
অথবা সালাত বিশুদ্ধ হবে?

প্রথমত:
অ্যালকোহল যুক্ত কোন সুগন্ধি বা বডি স্প্রে বা অন্য কিছু ব্যবহার করা জায়েজ হবে না।

★ বিন বায রাহিমাহুল্লাহ বলেন,
” استعمال الروائح العطرية المشتملة على مادة الكحول : لا يجوز ؛ لأنه ثبت لدينا بقول أهل الخبرة من الأطباء : أنها مسكرة ،
“مجلة البحوث الإسلامية” (20/185).

অ্যালকোহল যুক্ত সুগন্ধি ব্যবহার করা জায়েয নেই। কেননা আমাদের কাছে বিজ্ঞ ডাক্তারদের বক্তব্যের মাধ্যমে প্রমাণ রয়েছে যে, এগুলো মাদকতা সৃষ্টি করে (মাজাল্লাতুল বুহুস আলইসলামিয়া, 20 তম খন্ড, পৃষ্ঠা নং 185)

ফাতাওয়া লাজনা দায়েমাতে রয়েছে,
وبكلِّ حال ، فلا يجوز استعمال العطور التي فيها كحول ، سواء قلنا بنجاسة الخمر أو طهارتها ؛ لوجوب إتلاف الخمر ، وعدم الاستفادة منها ، والعطور التي فيها كحول يسكر كثيرها : حكمها حكم الخمر ” انتهى من “فتاوى اللجنة الدائمة” (22/144).

যেই সুগন্ধিতে অ্যালকোহল রয়েছে, তা ব্যবহার করা জায়েয নেই। মদকে চাই আমরা নাপাক বলি অথবা পাক বলি না কেন, কোন অবস্থাতেই এটি জায়েজ নেই। কেননা মদকে নষ্ট করা ওয়াজিব। সেখান থেকে কোন প্রকার উপকৃত হওয়া যাবে না। আর ওই সুগন্ধি যাতে অ্যালকোহল রয়েছে এই পরিমাণ যে, তার বেশি পরিমাণে মাদকতা আসে, তাহলে সেটি মদ এর হুকুম হবে।
( ফাতাওয়া লাজনা দায়েমা, 22 তম খন্ড, পৃষ্ঠা নং 144)

★ উক্ত ফাতাওয়ায়ে আরো বলা আছে,
وجاء في ” فتاوى اللجنة الدائمة ” أيضاً : ” إذا كانت نسبة الكحول بالعطور بلغت درجة الإسكار ، بشرب الكثير من تلك العطور ، فالشرب من تلك العطور محرم ، والاتجار فيها محرم ، وكذا سائر أنواع الانتفاع ؛ لأنه خمر ، سواء كثر أم قل .
وإن لم يبلغ المخلوط من العطور بالكحول درجة الإسكار بشرب الكثير منه : جاز استعماله والاتجار فيه ” انتهى من “فتاوى اللجنة الدائمة” (13/54).

সুগন্ধীতে অ্যালকোহল এর পরিমান যদি এমন হয় যে, তা বেশি পরিমাণ পান করলে মাদকতা আসবে, তাহলে ওই সুগন্ধি ব্যবহার করা হারাম, তার ব্যবসা করা হারাম এবং তা থেকে উপকার লাভ করা হারাম। কেননা এটি মদ। চাই কম হোক অথবা বেশি হোক। কিন্তু সুগন্ধিতে আতরের মিশ্রণ যদি এ পরিমাণ হয় যে, তা বেশি পান করলে মাদকতা আসে না, তাহলে তা ব্যবহার করা জায়েজ আছে এবং তার বাণিজ্য করাও জায়েয আছে।

ফাতাওয়া লাজনা দায়েমা, 13 তম খন্ড, পৃষ্ঠা 54

যে সুগন্ধি ব্যবহার করা হারাম মাদকতা আসার কারণে, এমন সুগন্ধি ব্যবহার করে যদি কোন ব্যক্তি সালাত আদায় করে, তাহলে তার সালাত হবে কিনা এই ব্যাপারে বিদ্বানদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। যারা বলেন, মদ হচ্ছে নাপাক। তাদের মতে, এমন সুগন্ধি ব্যবহার করে সালাত আদায় করলে সালাত হবে না। তাকে ওই কাপড় ধৌত করতে হবে। শরীরে লাগলে ধৌত করতে হবে ।
আর যারা বলেন যে মদ নাপাক নয়। তাদের মত অনুসারে, এই ব্যক্তির সালাত বিশুদ্ধ হয়ে যাবে।

শায়খ ফাউযান বলেন,
وقال الشيخ صالح الفوزان : ” العطور المسكرة يحرم استعمالها ، ولا تجوز الصلاة في الثوب الذي أصابه شيء منها حتى يغسل ما أصابه منها ؛ كسائر النجاسات ، وكذا البدن يجب غسل ما أصابه منها ؛ لأنها نجسة ؛ لأنها خمر”انتهى من “المنتقى من فتاوى الفوزان” (48/17).

যেই সুগন্ধি মাদকতা সৃষ্টি করে, তা ব্যবহার করা হারাম। এবং যেই কাপড়ে সুগন্ধি লেগে যায়, ওই কাপড় পরিধান করা সালাত আদায় করা জায়েজ নেই। যতক্ষণ না সে ওই কাপড় ধৌত করে যেখানে সুগন্ধি লেগে যায়। কেননা এটি নাপাক। যেহেতু এটি মদ।
মুনতাকা ফাতাওয়া আল-ফাওযা, ১৭ তম খন্ড, পৃষ্ঠা নং ৪৮


তবে আল্লামা নাসিরুদ্দিন আলবানী ও শায়খ বিন বায রাহিমাহুল্লাহ এটাকে পাক বলেছেন। সুতরাং তাদের মত অনুসারে, কোন ব্যক্তি এমন সুগন্ধি ব্যবহার করে সালাত আদায় করলে, তা শুদ্ধ হয়ে যাবে। তবে সেটা মাকরুহ হবে।
والله أعلم بالصواب.

★ দ্বিতীয়ত: মেয়েদের জন্য বৈধ নেই সুগন্ধিজাতীয় কিছু ব্যবহার করে মসজিদে গমন করা। হাদীসে এসেছে:

গ্রন্থঃ সুনান আবূ দাউদ (তাহকিককৃত)
হাদিস নম্বরঃ ৪১৭৪

বাইরে যাওয়ার সময় নারীদের সুগিন্ধ ব্যবহার সম্পর্কে

আবূ হুরাইরাহ (রাঃ) থেকে বর্ণিত। তিনি বলেনঃ একদা আমার সাথে এক মহিলার দেখা হলো, যার শরীর থেকে সুগন্ধি বের হচ্ছিল এবং তার (পাতলা) কাপড়ও বাতাসে উড়ছিল। তখন আমি তাকে বলি, হে বেহায়া মহিলা! তুমি কি মাসজিদ থেকে আসছো? সে বললো, হ্যাঁ। তিনি বললেন, তুমি কি খুশবু ব্যবহার করেছো? সে বললো, হ্যাঁ। তখন আবূ হুরাইরাহ (রাঃ) বলেন, আমি আমার প্রিয় আবুল কাসিম [রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম]-কে বলতে শুনেছিঃ যে মহিলা খুশবু লাগিয়ে এ মাসজিদে আসে, তার সালাত কবুল হয় না, যতক্ষণ না সে ফিরে গিয়ে নাপাকী গোসলের ন্যায় গোসল করে। (এমন উত্তমরূপে গোসল করে যাতে তার দেহে কোনো সুগন্ধি না থাকে)।
ইবনু মাজাহ, আহমাদ। হাদিসের মানঃ সহিহ।

★ উপরোক্ত আলোচনায় এটা পরিস্কার হলো যে, প্রথমত অ্যালকোহলযুক্ত কোন সুগন্ধি ব্যবহার করা যাবে না। দ্বিতীয়ত সুগন্ধি ব্যবহার করে মেয়েদের জন্য মসজিদে যাওয়া জায়েজ নেই।
কাজেই কোন নারী যদি এলকোহল মুক্ত সুগন্ধি ব্যবহার করে বাড়িতে সালাত আদায় করে যেখানে পর পুরুষের সেই ঘ্রাণ পাওয়ার সম্ভাবনা নেই তাহলে সেটা না জায়েজ হবে না। উক্ত ফাতাওয়ায়ে আরো বলা আছে,
وجاء في ” فتاوى اللجنة الدائمة ” أيضاً : ” إذا كانت نسبة الكحول بالعطور بلغت درجة الإسكار ، بشرب الكثير من تلك العطور ، فالشرب من تلك العطور محرم ، والاتجار فيها محرم ، وكذا سائر أنواع الانتفاع ؛ لأنه خمر ، سواء كثر أم قل .
وإن لم يبلغ المخلوط من العطور بالكحول درجة الإسكار بشرب الكثير منه : جاز استعماله والاتجار فيه ” انتهى من “فتاوى اللجنة الدائمة” (13/54).
সুগন্ধীতে অ্যালকোহল এর পরিমান যদি এমন হয় যে, তা বেশি পরিমাণ পান করলে মাদকতা আসবে, তাহলে ওই সুগন্ধি ব্যবহার করা হারাম, তার ব্যবসা করা হারাম এবং তা থেকে উপকার লাভ করা হারাম। কেননা এটি মদ। চাই কম হোক অথবা বেশি হোক। কিন্তু সুগন্ধিতে আতরের মিশ্রণ যদি এ পরিমাণ হয় যে, তা বেশি পান করলে মাদকতা আসে না, তাহলে তা ব্যবহার করা জায়েজ আছে এবং তার বাণিজ্য করাও জায়েয আছে।
ফাতাওয়া লাজনা দায়েমা, 13 তম খন্ড, পৃষ্ঠা 54

★ যে সুগন্ধি ব্যবহার করা হারাম মাদকতা আসার কারণে, এমন সুগন্ধি ব্যবহার করে যদি কোন ব্যক্তি সালাত আদায় করে, তাহলে তার সালাত হবে কিনা এই ব্যাপারে বিদ্বানদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। যারা বলেন, মদ হচ্ছে নাপাক। তাদের মতে, এমন সুগন্ধি ব্যবহার করে সালাত আদায় করলে সালাত হবে না। তাকে ওই কাপড় ধৌত করতে হবে। শরীরে লাগলে ধৌত করতে হবে ।
আর যারা বলেন যে মদ নাপাক নয়। তাদের মত অনুসারে, এই ব্যক্তির সালাত বিশুদ্ধ হয়ে যাবে।

★ শায়খ ফাউযান বলেন,
وقال الشيخ صالح الفوزان : ” العطور المسكرة يحرم استعمالها ، ولا تجوز الصلاة في الثوب الذي أصابه شيء منها حتى يغسل ما أصابه منها ؛ كسائر النجاسات ، وكذا البدن يجب غسل ما أصابه منها ؛ لأنها نجسة ؛ لأنها خمر”انتهى من “المنتقى من فتاوى الفوزان” (48/17).

যেই সুগন্ধি মাদকতা সৃষ্টি করে, তা ব্যবহার করা হারাম। এবং যেই কাপড়ে সুগন্ধি লেগে যায়, ওই কাপড় পরিধান করা সালাত আদায় করা জায়েজ নেই। যতক্ষণ না সে ওই কাপড় ধৌত করে যেখানে সুগন্ধি লেগে যায়। কেননা এটি নাপাক। যেহেতু এটি মদ।
মুনতাকা ফাতাওয়া আল-ফাওযা, ১৭ তম খন্ড, পৃষ্ঠা নং ৪৮

তবে আল্লামা নাসিরুদ্দিন আলবানী ও শায়খ বিন বায রাহিমাহুল্লাহ এটাকে পাক বলেছেন। সুতরাং তাদের মত অনুসারে, কোন ব্যক্তি এমন সুগন্ধি ব্যবহার করে সালাত আদায় করলে, তা শুদ্ধ হয়ে যাবে। তবে সেটা মাকরুহ হবে।
والله أعلم بالصواب.
গ্রন্থঃ সুনান আবূ দাউদ (তাহকিককৃত)
হাদিস নম্বরঃ ৪১৭৪

উত্তর প্রদানে
শাইখ মোঃ হযরত আলী।
ভাইস প্রিন্সিপাল, ইসলামী শিক্ষা ও সংস্কৃতি ইনস্টিটিউট, উত্তরা, ঢাকা।

Show More

Related Articles

Leave a Reply, if you have comments about this post.

Back to top button